সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১ ইং, বাংলা ২৩, ফাল্গুন ১৪২৭
  • সাঈদ হোসেন সজীব
  • ১৫৯৪৭৯৩১৩০

পাঠাও’য়ের সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিমের খণ্ডবিখণ্ড মরদেহ উদ্ধার

পাঠাও’য়ের সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিমের খণ্ডবিখণ্ড মরদেহ উদ্ধার

বাংলাদেশের জনপ্রিয় রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাও এর সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ নৃশংসভাবে খুন হয়েছেন। নিউইয়র্কে তার ফ্ল্যাট থেকে মাথাবিহীন মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিউইয়র্ক পুলিশের কর্মকর্তা সার্জেন্ট কার্লো নিভস জানান,ওই অ্যাপার্টমেন্ট থেকেই তার খণ্ডিতঅঙ্গপ্রত্যঙ্গ উদ্ধার করা হয়েছে।ঘটনাস্থলে আমরা খণ্ড দেহ,বিচ্ছিন্ন করা মাথা ও হাত পা পেয়েছি। সবকিছু এখনও সেখানে আছে।

জানা গেছে, ১৪ জুলাই এক আত্মীয়ের ফোন কলের সূত্র ধরে বেলা সাড়ে তিনটার দিকে পুলিশ ওই অ্যাপার্টমেন্টে যায়। অ্যাপার্টমেন্টের ভেতরে নির্মাণকাজে ব্যবহৃত ব্যাগ ও একটি ইলেকট্রিক করাতের পাশে ফাহিম সালেহর লাশ দেখতে পায় পুলিশ। ইলেকট্রিক করাত দিয়ে মৃতদেহ থেকে হাত, পা ও মাথা বিচ্ছিন্ন করে পাশের একটি ব্যাগে রাখা হয়। এনওয়াইপিডি পুরো বিষয়টি তদন্ত করছে। এখন পর্যন্ত এ নিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।

এনওয়াইপিডির বরাত দিয়ে নিউইয়র্কের ডেইলি নিউজ পত্রিকা জানিয়েছে, সোয়া দুই মিলিয়ন ডলার মূল্যের অ্যাপার্টমেন্টে পাওয়া ক্ষতবিক্ষত লাশটি ফাহিম সালেহর। বাংলাদেশে পাঠাও কোম্পানিতে নিজের শেয়ার বিক্রি করে নাইজেরিয়াতে একই ধরনের ব্যবসা শুরু করেছিলেন পেশায় ওয়েব ডেভেলপার ফাহিম সালেহ । গত জানুয়ারিতে নাইজেরিয়ায় গোকাডা নামের কোম্পানিটি সরকারি নিষেধাজ্ঞায় পড়ে।

যুক্তরাষ্ট্রের বেন্টলি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনফরমেশন সিস্টেম পড়াশোনা করতেন ফাহিম।১৯৮৬ সালে জন্ম ফাহিমের। তার বাবা সালেহ উদ্দিন বড় হয়েছেন চট্টগ্রামে আর মা নোয়াখালীর মানুষ। ফাহিম পড়াশোনা করেন ইনফরমেশন সিস্টেম নিয়ে আমেরিকার বেন্টলি বিশ্ববিদ্যালয়ে। থাকতেন নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনে।

ট্যাগস:


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়