শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১ ইং, বাংলা ২২, ফাল্গুন ১৪২৭
  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৫৯৮৪৬০৭৮৩

সাড়ে চার মাস পর সাবেক এমপি পুত্রের লাশ উত্তোলন, স্ত্রী ও ম্যানেজার পলাতক

সাড়ে চার মাস পর সাবেক এমপি পুত্রের লাশ উত্তোলন, স্ত্রী ও ম্যানেজার পলাতক

মৃত্যুর ৪ মাস ১৯ দিন পর ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ- ৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক সাংসদ মরহুম মুজিবুর রহমান মঞ্জুর বড় ছেলে বাজিতপুর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাহমুদুর রহমান উজ্জ্বলের লাশ কবর থেকে তোলা হয়েছে।আদালতের নির্দেশে আজ বুধবার(২৬আগষ্ট) দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও বাজিতপুরের এসি ল্যান্ড গোলাম মস্তোফা মুন্নার উপস্থিতিতে পুলিশ উপজেলার সাহাপুর গোরস্থান থেকে এ লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

গত ৭ এপ্রিল বিকাল ৪টার দিকে মথুরাপুর গ্রামের অধিবাসী নিঃসন্তান উজ্জ্বলকে (৩৫) গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় উপজেলার ভাগলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে পরিবারের অন্যদের ফোন করে জানান তার স্ত্রী খাদিজা আক্তার (২৪)।

এ সময় তিনি আরও দাবি করেন স্ট্রোক করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।পরিবারের লোকজনও এ ঘটনা বিশ্বাস করে যথারীতি জানাজা শেষে পার্শ্ববর্তী সাহাপুর প্রধান গোরস্থানে লাশ দাফন করেছিলেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গিয়েছে, উজ্জ্বলের মৃত্যুশোক কাটতে না কাটতেই উজ্জ্বলের মৃত্যুর তিন দিনের মাথায় তার স্ত্রী খাদিজা আক্তার পরিবারের সবার নিষেধ অমান্য করে জিনিসপত্র নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে যান।আর এ সময় তিনি ভুলক্রমে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন সেটটি বাড়িতে ফেলে গিয়েছিলেন।

এ মোবাইল সেট হাতে নিয়ে উজ্জ্বলের স্ত্রী খাদিজার সঙ্গে উজ্জ্বলের ফিশারি ও ইটভাটার ম্যানেজার আল আমিনের অশ্লীল ভিডিওচিত্র দেখে চমকে উঠেন পরিবারের লোকজন।আর এ ঘটনার পর উজ্জ্বলের স্বাভাবিক মৃত্যু নিয়ে সন্ধিহান হয়ে পড়েন পরিবারের লোকজন। এ ভিডিওচিত্র এবং তাদের আচার-আচরণ দেখে তাদের ধারণা হয় ম্যানেজারের সঙ্গে পরকীয়ায় লিপ্ত হওয়ার ঘটনা কোনোভাবে উজ্জ্বল জেনে ফেলায় খাবারের সঙ্গে বিষাক্ত কিছু মিশিয়ে স্ত্রী খাদিজা ও ম্যানেজার আল আমিন মিলে পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করেছেন।

এ ঘটনার বিবরণ উল্লেখ করে উজ্জ্বলের ছোট ভাই রাফি রহমান গত ৭ জুলাই কিশোরগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্যানড্রাইভে ওই পরকীয়ার অশ্লীল ভিডিও চিত্রসহ অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।বিজ্ঞ আদালত এ অভিযোগ আমলে নিয়ে অভিযোগটি এফআইআর হিসেবে গণ্য করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বাজিতপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

আদালতের নির্দেশনায় মামলা নিয়ে থানার ওসি মো. মাজহারুল ইসলাম ফৌজদারি কার্যবিধি ১৭৬ ও ১৭৬(২) ধারামতে, কবর থেকে লাশ উত্তোলন করে সুরতহাল রিপোর্ট ও ময়নাতদন্তের ব্যবস্থার জন্য ৫ আগস্ট একই আদালতে আবেদন করেন। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে লাশ উত্তোলন করে সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত রিপোর্ট সম্পন্ন করার অনুমতি দেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার ওসি মো. মাজহারুল ইসলাম এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এ সময় তিনি আরও জানিয়েছেন, ঘটনার পর থেকে ১নং আসামি উজ্জ্বলের স্ত্রী পার্শ্ববর্তী কটিয়াদী উপজেলার আদমপুর গ্রামের জালাল উদ্দীনের মেয়ে খাদিজা আক্তার (২৪) এবং ২নং আসামি উজ্জ্বলের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার বাজিতপুরের সাহাপুর বলিয়াদী গ্রামের জালাল মিয়ার ছেলে আল আমিন (৩২) পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

ট্যাগস:


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়